1. admin@dainiksabujbangla.com : admin :
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০২:০১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাঁশখালীতে পুকুরে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু বাঁশখালী উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ,সরগরমে মাঠ বাঁশখালীতে পানি নিষ্কাশন পথবন্ধের ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি, বেড়েছে মশার উপদ্রেব বাঁশখালীতে মনোনয়ন বৈধতার পর ভোটারদের দ্বারস্থ প্রার্থীরা, ভোটারদের মাঝে তেমন আমেজ নেই বাঁশখালীতে অবৈধ ভাবে কাটছে মাটি, দেখার কেউ নেই বাঁশখালী কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ব্যবসায়ী মোঃ ইলিয়াসের উপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ বাঁশখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ৩টি বসতঘর পুড়ে ছাই, ৩০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি বাঁশখালীর মানুষ সুশৃঙ্খল ও ঐক্যবদ্ধ যুবলীগের কর্মী সমাবেশে বললেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মুহাম্মদ দিদারুল ইসলাম চৌধুরী বাঁশখালী তৈলারদ্বীপ ব্রীজে অতিরিক্ত টোল আদায় দেওয়া হয়না টোলের রসিদ এলডিপি নেতা বিরূপ মন্তব্যে জনতার রোষানলে এমপি মুজিবুর  বাঁশখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিনে ৩ পদে ১৪ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

জুড়ীতে পিডিবির ভুতুড়ে বিলে গ্রাহকদের দুর্ভোগ চরমে

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই, ২০২২
  • ৬০ বার পঠিত

 

সালমান হেসেন,জুড়ী প্রতিনিধিঃ
মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলায় পিডিবির গলাকাটা বিল নিয়ে বিপাকে পড়েছে স্থানীয়রা।বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিলের কারণে প্রায়ই হয়রানির শিকার হচ্ছেন সাধারণ গ্রাহকরা, অনেককেই আবার গুনতে হচ্ছে জরিমানা। ভুতুড়ে বিল পরিশোধে ব্যর্থ হলে অনেক সময় গ্রাহকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন সহ মিটার খোলে নেওয়ারও ঘটনা ঘটছে বলেও জানান অনেকে।

জানা যায়, বাড়ি বাড়ি গিয়ে মিটারের রিডিং দেখে বিল দেওয়ার কথা থাকলেও প্রতিমাসে অফিসে বসে অনুমান নির্ভর ভুতুড়ে বিল তৈরি করে গ্রাহকদের কাছে বিলি করা হয়। এতে করে অতিরিক্ত বিলের বোঝা মাথায় নিয়ে বিদুৎ অফিস সহ বিভিন্ন জায়গায় ধরনা দিচ্ছে সাধারন গ্রাহক। অনেক সময় অফিসের লোকজনের সাথে ভুতুড়ে বিলকে কেন্দ্র করে গ্রাহকরা জড়িয়ে পড়ছেন বাক বিতণ্ডায়। দীর্ঘদিন থেকে এ সমস্যা চলতে থাকায় গ্রাহকদের দুর্ভোগ পৌঁছেছে চরমে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, অনেকেই অবৈধভাবে বিদ্যুৎ চুরি করে ব্যবহার করছেন। তার কারণে বিদ্যুৎ বিতরণে সিস্টেম লস হচ্ছে। এ ঘাটতি পূরণে বৈধ গ্রাহকদের অতিরিক্ত বিল দিয়ে সমন্বয় করা হচ্ছে।

উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমি নিজে ভুতুড়ে বিলের ভুক্তভোগী। ৭৫০ ইউনিটের বেশি বিল দিয়ে যাচ্ছি মাসের পর মাস। বিদ্যুৎ অফিসকে বার বার বলেও এ সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।

বেলাগাও গ্রামের আব্দুস সালাম বলেন, আমার মিটারে চলতি ইউনিট হচ্ছে ৩৪২৭ অথচ মিটার না দেখেই আমাকে বিল দেওয়া হয়েছে ৬৫০০ ইউনিটের। আমি একজন সাধারন কৃষক। কিন্তু বারবার অফিসে গিয়েও এ সমস্যা সমাধান হচ্ছে না। আমরা এ সমস্যার স্থায়ী সমাধান চাই।

ভুক্তভোগী দুলাল আহমদ বলেন, আমি সাধারণ একজন খেটে খাওয়া মানুষ। প্রতিমাসে অতিরিক্ত বিল দিয়ে আমাকে হয়রানি করা হচ্ছে। আমার মিটারে ২৮৫০ ইউনিট থাকলেও আমাকে বিল দেওয়া হচ্ছে ৫১৩০ ইউনিটের। বার বার অফিসে ধরনা দিয়েও সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।

এ বিষয়ে জুড়ী পিডিবির উপ – সহকারী প্রকৌশলী আনসারুল কবির শামীম বলেন, বন্যার কারণে কর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে মিটার দেখতে পারেন নি। এছাড়া অনেকের মিটার ঘরের ভিতরে থাকায় দেখা সম্ভব হচ্ছে না। তবে এ সময় তিনি মিটার না দেখে গ্রাহকদের বিলের কপি দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। যারা অতিরিক্ত বিলের অভিযোগ করেছেন মিটার দেখে সম্বনয় করা হবে।

পিডিবির আবাসিক প্রকৌশলী আনসার আলী বলেন, আমি এখন ছুটিতে আছি। এ ব্যাপারে পরে কথা বলব‌।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Dainik Sabuj Bangla
Theme Customized By Shakil IT Park